1. admin@protidineralo.news : admin :
মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৫:০১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
 যান্ত্রিক যুগে বিলুপ্ত গরুর হাল শৈত্য প্রবাহ আর কনকনে শীতে ঝিনাইদহের ফুটপাত মার্কেটে বাড়ছে ভিড় তাড়াশের ২টি ইউনিয়নে ৯জন চেয়ারম্যান, সংরক্ষিত আসনে ৭৪ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ২৪ জন প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র বৈধ নন্দীগ্রামে দামরুল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উদযাপন নন্দীগ্রাম উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে জিন্নাহর ফরম উত্তোলন সুন্দরগঞ্জে উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত সুন্দরগঞ্জে দুভোর্গে পথচারি কালীগঞ্জে ৭০ টি শিখন কেন্দ্রের উদ্বোধন ঝিনাইদহে ইউনিয়ন পর্যায়ে দেওয়া হচ্ছে শিক্ষার্থীদের করোনার টিকা হরিণাকুন্ডে লক্ষাধিক টাকার চুরি যাওয়া সরকারী গাছ উদ্ধারে মামলা দায়ের

রাস্তা ছাড়া এক গ্রাম

প্রশাসন
  • সময় : রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১
  • ১৯৪ বার পঠিত

অনলাইন ডেস্ক:

এ যেন রূপকথার এক গ্রাম। দেখতে ছবির মতো সুন্দর, কোথাও কোনো শব্দ নেই। রূপকথার এ রাজ্য দেখতে চাইলে যেতে পারেন গিয়েথুর্ন গ্রামে। এটি নেদারল্যান্ডসের ছোট্ট এবং সুন্দর একটা গ্রাম। সবুজে ঘেরা জাদুকরী এ গ্রামটি পর্যটকদের কাছে খুবই জনপ্রিয়। এটাকে ‘নেদারল্যান্ডসের ভেনিস’ও বলা হয়।

১২৩০ সালে স্বপ্নের মতো এ গ্রামটি প্রতিষ্ঠিত হয়। অন্যান্য স্থান থেকে এ গ্রাম আলাদা কারণ এখানে যাওয়ার কোনো রাস্তা নেই। এ জন্য এখানে কোনো গাড়ির শব্দও শোনা যায় না। গ্রামটিতে যেতে হলে গ্রামের বাইরেই গাড়িটি রেখে যেতে হয়।এখানে যেতে হয় পানিপথে। গ্রামের এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে যেতে এখানকার বাসিন্দারা নৌকা ব্যবহার করেন। গ্রামের শান্ত পরিবেশ বজায় রাখতে নৌকাগুলোতে ব্যবহার করা হয় শব্দ ছাড়া ইঞ্জিন। ইতিহাস থেকে জানা যায়, এ গ্রামের বিভিন্ন জায়গায় মাটির নিচে ছোট -বড় ফাঁপা অংশ ছিল। গ্রামে মানুষ বসবাস শুরু করার পর, সেগুলি খুঁড়ে বার করতে শুরু করে।

বছরের পর বছর ধরে সেগুলি খুঁড়ে বার করার ফলে গ্রামের বিভিন্ন জায়গায় ছোটখাটো হ্রদ তৈরি হয়। এ গুলোর একটার সঙ্গে আরেকটা সংযোগ করে এ গ্রামে যেতে পানিপথ তৈরি হয়েছে।

গ্রামের বিভিন্ন দিক থেকে খালগুলি চলে যাওযায় গ্রামটাও ছোট ছোট দ্বীপে পরিণত হয়েছে। এ দ্বীপগুলোর মধ্যে যোগসূত্র তৈরি করেছে ১৫০টিরও বেশি সেতু।

রাজধানী আমস্টারডাম থেকে এ গ্রামটির দুরত্ব ৭৫ কিলোমিটার। বাস বা ট্রেনে সহজেই যাওয়া যায় এ গ্রামের সীমানায়।

ডাচ ফিল্মমেকার বার্ট হান্সট্রা তার কমেডি ফিল্ম ‘ফ্যানফেয়ার’-এর শুটিং এ গ্রামে করার পর ১৯৫৮ সালে গ্রামটা বিশ্বের নজরে আসে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর