1. admin@protidineralo.news : admin :
শনিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২২, ০৫:৫৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
নিখোঁজের ৫ দিন পর ঝিনাইদহে পুকুর থেকে বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার, হত্যা নাকি আত্মহত্যা! করোনার রেড জোনে যশোর ও কুষ্টিয়া আর ‘ইয়েলো জোনে’ চুয়াডাঙ্গা ও ঝিনাইদহ জেলা রানার মিথ্যা ও বানোয়াট অভিযোগের প্রতিবাদে নন্দীগ্রাম উপজেলা চেয়ারম্যানের সংবাদ সম্মেলন পলাশবাড়ীতে চোখে গুল ও বালু ছিটিয়ে ৩ লাখ ৬৫ হাজার ৮ শত টাকা ছিনতাইয়ে অভিযোগ এসএম কামাল হোসেনের সুস্থতা কামনায় নন্দীগ্রামে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত সুন্দরগঞ্জে হিরোইনসহ শিক্ষক গ্রেপ্তার সুন্দরগঞ্জে ইট ভাটায় চলে যাচ্ছে আবাদি জমির উর্বর মাটি শৈলকুপা প্রেসক্লাবে ছোট ভাইয়ের সংবাদ সম্মেলন ঝিনাইদহে বাল্য বিবাহ প্রতিরোধে অভিভাবকদের সাথে সংলাপ অনুষ্ঠিত সুন্দরগঞ্জে শিশু ধর্ষণের অভিযোগে ধর্ষক গ্রেপ্তার

গাইবান্ধায় আনন্দটিভি প্রতিনিধির ক্যামেরাম্যান গ্রেফতার থানায় মামলা দায়ের ইউপি চেয়ারম্যান চিকিৎসাধীন

প্রশাসন
  • সময় : মঙ্গলবার, ১১ মে, ২০২১
  • ৪৯ বার পঠিত

 

আশরাফুল ইসলাম গাইবান্ধা:
গাইবান্ধা জেলার ৩ গণমাধ্যমকর্মীদের বিরুদ্ধে ইউপি চেয়ারম্যান ও তার স্ত্রীর ভিডিও ধারণ করে ব্যাক মেইল ও চাদা দাবীর অভিযোগে সঙ্গে সঙ্গে স্থানীয়দের হস্তক্ষেপে আনন্দটিভির প্রতিনিধির একজন ক্যামেরাম্যান নুর আলম আটক হওয়ার পর অবশেষে ফুলছড়ি থানায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে। ফুলছড়ি উপজেলার কঞ্চিপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান লিটন মিয়ার স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন বাদি হয়ে এ মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নং-৪/৪৫ এ মামলায় নুর আলম কে গ্রেফতার দেখিয়ে বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে। এ মামলায় গ্রেফতারকৃত নুর আলম (২২) গাইবান্ধা সদর থানার প্রফেসার কলোনীর সাজু মিয়ার ছেলে।

এজাহার সূত্রে জানা যায়, মামলার আসামী হলেন ১ নং আসামী ফুলছড়ি উপজেলার থানা পাড়ার মশিউর রহমান চানের ছেলে কতিথ নামধারী গণমাধ্যমকর্মী মেহেদী হাসান বাবু ও মামলার ২ নং আসামী আনন্দটিভি ষ্ট্যাফ রিপোটার মিলন খন্দকার বর্তমান সময়ে পলাতক রয়েছে বলে জানা যায়। আনন্দটিভি প্রতিনিধির ব্যক্তিগত ক্যামেরাম্যান ৩নং আসামী নুর আলম (আটককৃত)সহ ৮ হতে ১০ জন অজ্ঞাত ব্যক্তি গত ৯ মে রবিবার বিকাল ৫ ঘটিকার সময় ফুলছড়ি উপজেলার কঞ্চিপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানে আয়োজেনে পবিত্র ঈদ উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার বিতরণ কালে ব্যস্ত থাকার সুযোগে। ভিজিডি ও ভিজিএফ সুবিধাভোগীদের মাঝে চেয়ারম্যানের স্ত্রী শ্লিপ প্রদান করার কালে অভিযুক্তদের নিকট থাকা ক্যামেরা ভিডিও ভিডিও ধারণ করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার প্রদানে অনিয়মের কথা বলে ইউপি চেয়ারম্যানের স্ত্রীকে ব্ল্যাক মেইল করার চেষ্টা ও ভিডিও ডিলেট করতে প্রথমে ৫০ হাজার টাকা চাদা দাবী করে। বিষয়টি স্থানীয় সাক্ষিগণের সামনে হওয়া তিনি সঙ্গে সঙ্গে চেয়ারম্যান কে অবগত করলে স্থানীয়দের মাঝে উত্তেজনা সৃষ্টি হলে অভিযুক্তরা দ্রুত সটকে পরে। এবং ইউনিয়ন পরিষদের গিয়ে পরিষদের ২ তলা হতে ইউপি চেয়ারম্যান কে নিয়ে অভিযুক্তরা সমিতির বাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নিয়ে গিয়ে উক্ত ভিডিও দেখায় এবং উক্ত ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছাড়িয়ে সম্মানহানি ও নানা ধরণের ভয়ভীতি দেখিয়ে এক লক্ষ টাকা চাদা দাবী করে। এরপর তাদের দাবীকৃত টাকা দিতে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান লিটন মিয়া অস্বীকৃতি জানালে অভিযুক্ত চেয়ারম্যান ও তার স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন কে অভিযুক্ত মেহেদী হাসান বাবু অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে এর প্রতিবাদ করায় ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান লিটন কে অভিযুক্তরা কিল ঘুষি ,লাত্থি মারিয়া চেয়ারম্যান লিটন মিয়া মাথায়, বুকে ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে গুরুতর বেদনাদায় জখম করে। এসময় উপস্থিত উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার নুর আলম বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অবগত করলে ঘটনাস্থলে যান উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও থানা পুলিশের একটি টিম তারা বিষয়টি জানে ও দেখেন এসময় স্থানীয়দের সহযোগীতায় আটককৃত নুর আলম কে ক্যামেরা ও মোটরসাইকেল বুঝিয়ে দেওয়া হয়। এঘটনায় ফুলছড়ি থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। বর্তমানে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান লিটন গাইবান্ধা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু রায়হান মোহাম¥াদ দোলন জানান,উক্ত ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে জনতার হাতে আটক ব্যক্তিকে জনরোষ হতে উদ্ধার করে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় যেহেতু মামলা হয়েছে সেহেতু তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। বিজ্ঞ আদালতের জানা যাবে কে কতটুকু অপরাধ করেছে।

ভারপ্রাপ্ত থানা অফিসার ইনচার্জ ওসি তদন্ত জানান, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নেতৃত্বে জনরোষ হতে উদ্ধার আটক নুর আলম সহ তিন জনের বিরুদ্ধে ফুলছড়ি থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। আটককৃতদের বিরুদ্ধে পুলিশের অভিযান চলমান রয়েছে।

আহত ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান লিটন বলেন, উক্ত ঘটনায় মামলা দায়ের হয়েছে । তদন্ত সাপেক্ষে অপরাধিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হোক। আজ তারা আমাকে নিয়ে ও আমার পরিবারকে নিয়ে গভীর ষরযন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে। আমি গাইবান্ধা জেলা প্রশাসক ও আইন শৃংখলা বাহিনীর প্রয়োজনীয় হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এদিকে এমন নেক্কার জনক ঘটনায় খবর ছড়িয়ে পড়লে জেলা সচেতন মহল ও প্রথমসারির গণমাধ্যমকর্মীরা বলেন, জেলার গণমাধ্যমকর্মীদের সম্মান নিয়ে ছিনিমিনি খেলা শুরু করেছেন আনন্দটিভির ষ্ট্যাফ রিপোর্টার মিলন খন্দকারসহ তার সাথে থাকা কথিত কিছু গণমাধ্যমকর্মীগণ। যারা প্রতিনিয়ত জেলা বিভিন্ন স্থানে চাদাবাজি অভিযোগে অভিযুক্ত হচ্ছেন এবং নানা প্রকার অপ্রতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করছেন।এতে জেলা জুড়ে গণমাধ্যমকর্মীদের নানা ভাবে বিব্রতকর অবস্থার মধ্যে পড়তে হচ্ছে। উক্ত ঘটনায় সঠিক ভাবে তদন্ত করে প্রকৃত অপরাধির দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তি দাবী করেছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর