1. admin@protidineralo.news : admin :
শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৫:২০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
সুন্দরগঞ্জে নারী নির্যাতন রোধে মানববন্ধন  সুন্দরগঞ্জে দুই মাদক ব্যবসায়ির জেল ও জরিমানা তাড়াশে অনগ্রসর ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠীর আর্থ সামাজিক ও মানোন্নয়নের লক্ষে উন্নত জাতের ক্রসব্রিড বকনা প্যাকেজ এর অনুদান বিতরণ সুন্দরগঞ্জে আগুনে পুড়ল পাঁচ লাখ টাকার সম্পদ তাড়াশ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ শাখা ছাত্রলীগের উদ্যোগে পরীক্ষার্থীদের মাঝে মাস্ক বিতরণ কালীগঞ্জে ভোট কারচুপির অভিযোগ, দু’টি কেন্দ্র থেকে আরও ২১ টি মুড়ি বই উদ্ধার! নারী ও শিশু নির্যাতন,পরকিয়া,যৌতুক এবং পর্নোগ্রাফিসহ ৪ মামলার আসামী সওজের প্রকৌশলী শৈলকুপার আলোচিত সেই টিটু গ্রেপ্তার ঝিনাইদহের পুলিশ স্বামীর পরকীয়ায় অসহায় স্ত্রী-সন্তান! তাড়াশে অভ্যন্তরীণ আমন ধান ও চাল সংগ্রহ কর্ম সূচির উদ্বোধন করলেন ইউএনও মেজবাউল করিম মহেশপুরে গরুর সঙ্গে মটরসাইকেলের ধাক্কায় মুক্তিযোদ্ধা নিহত!

নন্দীগ্রামে নবান্ন উৎসবে মাছের মেলা

প্রশাসন
  • সময় : বৃহস্পতিবার, ১৮ নভেম্বর, ২০২১
  • ৭ বার পঠিত

নন্দীগ্রাম(বগুড়া)প্রতিনিধিঃ

নন্দীগ্রামে নবান্ন উৎসবে হরেক মাছের মেলা সুন্দর করে সাজানো সিলভার কার্প, কাতলা, চিতল, রুই, ব্লাককার্প, বিগহেড, বাঘা আইড়, বোয়ালসহ হরেক রকমের মাছ। সারি সারি দোকান। সেখানে থরে থরে সাজানো চলছে হাঁকডাক, দরদাম। এক কেজি থেকে শুরু করে ২৫ কেজি ওজনের মাছ আছে। লোকজনও ব্যাপক উৎসাহের সঙ্গে কিনছেন এসব মাছ। আবার দেখতে এসেছেন অনেকেই।জানা গেছে, সনাতন ধর্মাবলম্বীদের উৎসবের পঞ্জিকা অনুসারে বৃহস্পতিবার অগ্রহায়ণের আজকের এই দিনে নবান্ন উৎসব পালন করে। প্রতিবছর এ উৎসবকে ঘিরে বগুড়ার উপজেলার ওমরপুর, রণবাঘায় মাছের মেলা বসে। এছাড়ায় উপজেলার নাগরকান্দি, হাটকড়ই, ধুন্দার ও নন্দীগ্রামে মাছের মেলা বসেছে। মাছ মেলায় অনেক জেলে, মাছ খামারি, মাছ ব্যবসায়ী তাদের মাছ নিয়ে এনেছেন। উপজেলাজুড়ে প্রতিটি বাড়িতেই মেয়ে-জামাইসহ স্বজনদের আগে থেকেই দাওয়াত দেওয়া হয়। ১৮০ থেকে ৪৫০ টাকা কেজি দরে বির্গেড ও সিলভার কার্প মাছ বিক্রি হচ্ছে। রুই ও কাতলা মাছ বিক্রি হচ্ছে ২২০ থেকে ৬৫০ টাকা কেজি দরে। চিতল ও ব্লাককার্প মাছ ও জনভেদে ৫০০ থেকে ৭০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়াও ১২ কেজি ওজনের গজাইড় মাছ ১৫০০ টাকা কেজি দরে দাম চাওয়া হচ্ছে। এদিকে মেলায় শীতকালীন হরেক রকমের সবজি উঠেছে। প্রতিবারের মতো এবারও ক্রেতা সমাগম চোখে পড়ার মতো এবং মাছের দামও অনেকটা স্বাভাবিক বলে জানান ক্রেতা ও বিক্রেতারা। কালিকাপুর প্রামের ধীরেন চন্দ্র বলেন, যুগ যুগ ধরে অগ্রহায়ণ মাসের এইদিন মাছের মেলা বসে। দিন যতোই যাচ্ছে এই মেলার ঐতিহ্য ততোই বাড়ছে। মাছ বিক্রেতা মিলন হোসেন বলেন, মেলায় ছোট-বড় মিলে প্রায় শতাধিক মাছের দোকান বসেছে। প্রত্যেকে বিক্রেতা অন্তত ১০ থেকে ২০ মণ করে মাছ বিক্রি করেছেন। গুন্দইল গ্রামের অপর মাছ বিক্রেতা মোস্তফা আলী বলেন, নবান্ন উৎসবকে ঘিরেই তারা মূলত বড় বড় মাছ মেলায় বিক্রি করতে আনেন। তারা ক্রেতাদের ক্রয়ক্ষমতাকে চিন্তা করে মাছের দাম কম রাখেন। এলাকার মানুষদের সঙ্গে দামের ক্ষেত্রে তেমন একটা আপত্তি করেন না।উপজেলার কাথম গ্রাম থেকে অতিথি আপ্যায়নের জন্য মাছ কিনতে এসেছেন শফিকুল ইসলাম। তিনি জানান, দীর্ঘ দিন ধরে এখানে নবান্ন উৎসব উপলক্ষে মেলা বসে। দিনব্যাপী এই মেলায় নিত্যনতুন জিনিস পাওয়া যায়। তবে প্রধান আকর্ষণ মাছ। পুকুরের বড় বড় মাছ মেলায় বিক্রি করতে আনেন। এ মেলায় মাছের পাশাপাশি সকল মেলা পণ্য পাওয়া যায়।

 

 

সংবাদটি শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর